ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ভারতের জয়ের শিরোপা এক নতুন তারকা।

 

  বিশ্বের  সবচে বড়ো স্টেডিয়ামে ভারতের সঙ্গে ইংল্যান্ডের চতুর্থ t20  তে ভারতের এক নতুন তারকা তার  বিধ্বংসী ব্যাটিং দিয়ে ইংল্যান্ডের থেকে জয় ছিনিয়ে নিল।  সূর্য কুমার যাদব  দেখিয়ে দিল বাগ বসে থাকলেই স্বীকার করতে ভুলে না। অনেকদিন ভারতীয় টিমে চান্স পাইনি খেলছিল শুধুমাত্র ঘরোয়া ক্রিকেট। অনেকদিন ধরে ইন্ডিয়া টিমে চান্স না পেলে ইন্ডিয়া টিমের চান্স পেয়ে দেখিয়া  দিল সে কত ভালো প্লেয়ার।

ভারতে সিরিজের 2-1 এর দোরগোড়ায় ছিল। ভারতের পরবর্তী দুটি ম্যাচ জিততেই হত যদি একটি ম্যাচে হরে যেত  তাহলে সিরিজ  হাতছাড়া হতো। ইন্ডিয়া তাই দলের  কিছু পরিবর্তনের সাথে গ্রাউন্ডে নামে। প্রথম ম্যাচে ব্যাট না পাওয়া সূর্য কুমার যাদব কে পুনরায় সুযোগ দেয়া হয়। 


ইন্ডিয়া তরফ থেকে আবার প্রথমে ব্যাট করতে আসে কে এল রাহুল ও রোহিত শর্মা দুজনেই ব্যাটিং বেশি রান না করেই ড্রেসিং রুমে ফিরে যায়। এরপর ভারতের থেকে ব্যাট করতে আসে সূর্য কুমার যাদব। এটা সূর্য কুমার যাদব এর ভারতের টিমের হয়ে প্রথম ব্যাটিং।এসেই প্রথম বলে একটি বিশাল ছক্কা হাঁকিয়ে সবাইকে অবাক করে দেয়। কিন্তু তার এই ইনিংস একটা বিশাল ছক্কা শেষ হয়ে যায়নি , দুরন্ত  চার  ছয় মেরে নিজের এবং দলের স্কোর কে ক্রমাগত এগিয়ে নিয়ে যেতে থাকে। প্রথম ব্যাট করতে এসেই মাত্র 31 বলে 57 রানের একটা বিশাল ইনিংস খেলে আম্পায়ারের ভুল সিদ্ধান্তে দুর্ভাগ্যজনকভাবে আউট হয়ে যায় সূর্য কুমার যাদব।

কিন্তু তার এই ইনিংস ভারতের কাছে জয়ের একটা আত্মবিশ্বাস এনে দেয় । এরপর শ্রেয়াস এসে একটা ইম্প্যাক্টফুল ইনিংস খেলে মাত্র 18 বলে 37 রান করে। শ্রেয়াস  নিজের জায়গায় না খেলতে পারলেও  দলের জন্য নিচে নেমে একটা ভালো ইনিংস খেলে এবং ইংল্যান্ডেকে 186 রানের একটা বিশাল টার্গেট দেয়।

ইংল্যান্ডে তরফ থেকে ব্যাট করতে আসে  আগের ম্যাচে বিশাল ফর্মে থাকা জস  বাটলার এবং জেসন রয় । কিন্তু এই ম্যাচে জস  বাটলার তেমন কোনো রান করতে পারেনি মাত্র  9 রান করে ড্রেসিংরুমে ফিরে যায় কিন্তু জেসেন রয় একটা ইম্প্যাক্টফুল ইনিংস খেলে , মাত্র 27 বলে 40 রান  করে। এরপর নামে বেন স্টকস যার দুর্দান্ত ব্যাটিং এ  মনে হয়েছিল ভারত আবার পরাজয় স্বীকার করবে , কিন্তু সেই মুহূর্তে দেখা যায় শার্দুল ঠাকুরের একটা ম্যাজিক্যাল ওভার।  শার্দুল ঠাকুরের প্রথমের অফার গুলো খুব ভালো না গেলও  17 নম্বর অভারে  বেন স্ট্রোক এবং ইয়ং মর্গ্যান কে অফ কাটারে আউট করে ভারতের জয়কে সুনিশ্চিত করে দেয় কিন্তু এটা ক্রিকেট , এখানে জয় কখন পরাজয় হয়ে  যায় বলা যায় না। 

          লাস্ট ওভারে আবার বলের দায়িত্ব থাকে শার্দুল ঠাকুরের উপর কিন্তু শার্দুল ঠাকুরের প্রথম দুই বলেই 4 এবং 6 হাঁকিয়ে জোফরা আচার ম্যাচের এক টার্নিং পয়েন্টে এনে দেয় ইংল্যান্ড ভারত দুজনে ভেবেছিল হয়তো ম্যাচ  ভারতের হাত থেকে ফসকে গেল কিন্তু লাস্ট 3 বল ভালো করে শার্দুল ঠাকুর ভারতকে জয় এনে দেয়।